সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

jatiy-sangsad-bhaban.jpg

আমাদের গৌরব আমাদের সংসদ ভবন - এক অনন্য গৌরবগাথা

১৯৮২ সালের ২৮ জানুয়ারি এর নির্মান কাজ সম্পন্নের ঘোষণা আসার পর এরপরের মাস ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ থেকে এর আনুষ্ঠানিক ব্যবহার শুরু হয়।

আমাদের জাতীয় সংসদ ভবন তৈরী হতে সময় লাগে ২১ বছর, যেখানে তাজমহল তৈরিতে সময় লেগেছিলো ১৬ বছর। ১৯৬১ সালে পাকিস্তান আমলে এর নির্মান কাজ শুরু হয়ে ১৯৮২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের সময়ে সম্পন্ন হয়।

প্রাথমিক পর্যায়ে দেশ বরেণ্য প্রকৌশলী মাজহারুল ইসলামকে দায়িত্ব দেয়া হয় এর নকশা তৈরী করার জন্যে। প্রকৌশলী মাজহারুল ইসলাম এই দায়িত্ব পালনের জন্যে তার দীক্ষাগুরু Louis Kahn কে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে এই মহান প্রকৌশলীর নকশায় ও তত্ত্বাবধানে দীর্ঘ সময় ধরে এর নির্মান কাজ চলে। এর মাঝে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সাক্ষী হয় এই নির্মাণাধীন স্থাপনা।

১৯৭৪ সালের ১৭ মার্চ Louis Kahn মারা যান, যার অর্থ হলো তিনি তার এই মহান কীর্তির পূর্ণ বাস্তবরূপ দেখে যেতে পারেননি। পরবর্তীতে তার অনুসারীদের তত্ত্বাবধানে এর বাকি কাজ সম্পন্ন হয়। ১৯৮২ সালের ২৮ জানুয়ারি এর নির্মান কাজ সম্পন্নের ঘোষণা আসার পর এরপরের মাস ফেব্রুয়ারির ১৫ তারিখ থেকে এর আনুষ্ঠানিক ব্যবহার শুরু হয়।

জাতীয় সংসদের মূল ভবনটি তিনটি অংশে বিভক্ত - মূল প্লাজা যার আয়তন ৮২৩,০০০ বর্গফুট; দক্ষিন প্লাজা যার আয়তন ২২৩,০০০ বর্গফুট এবং প্রেসিডেন্ট প্লাজার আয়তন ৬৫,০০০ বর্গফুট। মূল ভবনের বাইরে আছে এমপি হোস্টেল এবং একটি কৃত্রিম লেক দ্বারা মূল ভবনটি বেষ্টিত।

জাতীয় সংসদ ভবনের ডিজাইন ও নির্মান ব্যয় ধরা হয় ৩২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বলা হয়ে থাকে যে এর কাজ সম্পন্ন করা পর্যন্ত Louis Kahn জীবিত না থাকায় তার প্রাপ্য মজুরি তার পরিবারকে আর পরিশোধ করা হয়নি।

Louis Kahn-এর স্থাপত্য রীতি ছিলো এক নতুন যুগের সূচনা। আধুনিক স্থাপত্যরীতির পুরোধা বলা হয় তাকে। সহজ জ্যামিতিক ফর্মের সন্নিবেশনে তার স্থাপত্যের নকশায় এক ধরনের বিশালতা আসতো যা আশপাশের সবাইকে উপস্থিতির জানান দিত। বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ ভবন ১৯৮৯ সালে স্থাপত্যে আগা খান পুরস্কার লাভ করে।

-
তথ্যসুত্র: উইকিপেডিয়া ও অন্যান্য ওয়েবসাইট

এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

Bangladesh, Jatiyo, Sangsad, Assembly, House, National, Parliament, Dhaka, Pride